Tuesday, 6 January 2015

মিলাদুন্নবী (সা) ইমামগন, মুহাদ্দিসিন, মুফাসসিরিন ও মুজাদ্দিদিন গনের দৃষ্টিতে:-

বিভিন্ন জগতবিখ্যাত কিতাব থেকে মিলাদুন্নবী (সা) উদযাপন সম্পর্কে আলোচনা করা হল :-


♦ ইবলিশ শয়তান জীবনে ঠিক এই সময়টাতেই খুব বেশি কেঁদেছে বা আফসোস করেছে।
أن إبليس رن أربع رنات حين لعن وحين أهبط وحين ولد رسول الله صلى الله عليه وسلم وحين أنزلت الفاتحة
১. আল্লাহ যখন তাকে অভিশপ্ত হিসেবে ঘোষণা দিলেন,
২. যখন তাকে বেহেস্ত থেকে বিতাড়িত করা হল,
৩. নূর নবীজীর ﷺُ দুনিয়াতে আগমনের সময় এবং
৪. সূরা ফাতিহা নাযিল হবার সময়
[সূত্রঃ ইবন কাসির, আল আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া, ২য় খন্ড, পৃষ্ঠা - ১৬৬]



♦ বিশিষ্ট তাবিয়ী, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত,যিনি শতাধিক সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম উনাদের সাক্ষাত মুবারক লাভ করেছিলেন, সেই বিখ্যাত ইমাম হযরত হাসান বছরী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন-

قال الحسن البصرى رحمة الله عليه وَدِدْتُّ لَوْ كَانَ لِىْ مِثْلُ جَبَلِ اُحُدٍ ذَهْبًا فَاَنْفَقْتُهٗ عَلٰى قِرَاءَةِ مَوْلِدِ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ.

অর্থ: ‘আমার একান্ত ইচ্ছা হয় যে, আমার যদি উহুদ পাহাড় পরিমাণ স্বর্ণ থাকতো তাহলে তা পবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে ব্যয় করতাম।’
সুবহানাল্লাহ!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ৮ পৃষ্ঠা

♦শাফেয়ী মাযহাবের ইমাম হযরত ইমাম শাফিয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন-

قَالَ اَلاِمَامُ الشَّافِعِىُّ رَحِمَهُ اللهُ مَنْ جَمَعَ لِمَوْلِدِ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلّمَ اِخْوَانًا وَهَيَّاَ طَعَامًا وَاَخْلٰى مَكَانًا وَعَمَلَ اِحْسَانًا وَصَارَ سَبَبًا لِقِرَائَتِهٖ بَعَثَهُ اللهُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ مَعَ الصِّدِّيْقِيْنَ وَالشُّهَدَاءِ وَالصَّالِحِيْنَ وَيَكُوْنُ فِىْ جَنَّاتِ النَّعِيْمِ.

অর্থ: ‘যে ব্যক্তি পবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপন উপলক্ষে লোকজন একত্রিত করলো, খাদ্য তৈরি করলো, জায়গা নির্দিষ্ট করলো এবং এ জন্য উত্তমভাবে তথা সুন্নাহ ভিত্তিক আমল করলো তাহলে উক্ত ব্যক্তিকে আল্লাহ পাক হাশরের দিন ছিদ্দীক্ব, শহীদ ছলিহীনগণের সাথে উঠাবেন এবং উনার ঠিকানা হবে জান্নাতে নায়ীমে।’ সুবহানাল্লাহ!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ১০ পৃষ্ঠা ।

♦সাইয়্যিদুত্ ত্বায়িফাহ হযরত জুনাইদ বাগদাদী ক্বাদ্দাসাল্লাহু সিররাহু রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন-

قال جنيد البغدادى رحمة الله عليه مَنْ حَضَرَ مَوْلِدَ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَعَظَّمَ قَدَرَهٗ فَقَدْ فَازَ بِالاِيْمَانِ.

অর্থ: “যে ব্যক্তিপবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর আয়োজনে উপস্থিত হবে এবং উপযুক্ত সম্মান প্রদর্শন করবে সে বেহেশ্তী হবে।” সুবহানাল্লাহ!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ৮ পৃষ্ঠা


♦ যুগের শায়খুল ইসলাম ও মুহাদ্দীস ইমাম ইবনে হাজর আসকালানী (রহ:):-

এমতাবস্থায় তিনি তাদেরকে এর কারণ জিজ্ঞেস করলে তারা উত্তর দেন, ‘এই দিনে আল্লাহতা’লা ফেরাউনকে পানিতে ডুবিয়ে মূসা (আ:)-কে রক্ষা করেন। তাই আমরা মহান প্রভুর দরবারে এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের উদ্দেশ্যে রোযা রেখে থাকি।’ এই ঘটনা পরিস্ফুট করে যে আল্লাহতা’লার রহমত অবতরণের কিংবা বালা-মসীবত দূর হওয়ার কোনো বিশেষ দিনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা, সেই উদ্দেশ্যে বার্ষিকী হিসেবে তা উদযাপনের সময় নামায, রোযা, দান-সদকাহ বা কুরআন তেলাওয়াতের মতো বিভিন্ন এবাদত-বন্দেগী পালন করা শরীয়তে জায়েয। আর রাসূলুল্লাহ (ﷺসা)-এর মীলাদের (ধরণীতে শুভাগমন দিবসের) চেয়ে আল্লাহর বড় রহমত কী-ই বা হতে পারে? এরই আলোকে প্রত্যেকের উচিত হযরত মূসা (আ:) ও ১০ই মহররমের ঘটনার (দালিলিক ভিত্তির) সাথে সঙ্গতি রেখে মীলাদুন্নবী (সাﷺ) দিবস উদযাপন করা; তবে যাঁরা এটি বিবেচনায় নেন না, তাঁরা (রবিউল আউয়াল) মাসের যে কোনো দিন তা উদযাপনে আপত্তি করেন না; অপর দিকে কেউ কেউ সারা বছরের যে কোনো সময় (দিন/ক্ষণ) তা উদযাপনকে কোনো ব্যতিক্রম ছাড়াই বৈধ জেনেছেন।[প্রাগুক্ত ‘হুসনুল মাকসাদ ফী আমলিল মওলিদ’, ৬৪ পৃষ্ঠা]।

♦তিনি আরো বলেন:-

”আমি মওলিদের বৈধতার দলিল সুন্নাহ’র আরেকটি উৎস থেকে পেয়েছি (আশুরার হাদীস থেকে বের করা সিদ্ধান্তের বাইরে)। এই হাদীস ইমাম বায়হাকী (রহ:) হযরত আনাস (রা:) থেকে বর্ণনা করেন: ‘হুযূর পাক (ﷺসা)নবুয়্যত প্রাপ্তির পর নিজের নামে আকিকাহ করেন; অথচ তাঁর দাদা আবদুল মোত্তালিব তাঁরই বেলাদতের সপ্তম দিবসে তাঁর নামে আকিকাহ করেছিলেন, আর আকিকাহ দু’বার করা যায় না। অতএব, রাসূলে খোদা (সাﷺ) বিশ্বজগতে আল্লাহর রহমত হিসেবে প্রেরিত হওয়ায় মহান প্রভুর দরবারে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্যে এটি করেছিলেন, তাঁর উম্মতকে সম্মানিত করার জন্যেও, যেমনিভাবে তিনি নিজের ওসীলা দিয়ে দোয়া করতেন। তাই আমাদের জন্যেও এটি করা উত্তম হবে যে আমরা মীলাদুন্নবী (সাﷺ) দিবসে কৃতজ্ঞতাসূচক খুশি প্রকাশার্থে আমাদের দ্বীনী ভাইদের সাথে সমবেত হই, মানুষদেরকে খাবার পরিবেশন করি এবং অন্যান্য সওয়াবদায়ক আমল পালন করি।’ এই হাদীস পূর্বোক্ত মহানবী (সাﷺ) -এর দ্বারা মীলাদ ও নবুয়্যত-প্রাপ্তির দিবস পালনার্থে সোমবার রোযা রাখার হাদীসকে সমর্থন দেয়।” [প্রাগুক্ত ‘হুসনুল মাকসাদ ফী আমলিল মওলিদ, ৬৪-৬৫ পৃষ্ঠা]


♦ ইমাম সেহাবউদ্দীন আবুল আব্বাস কসতলানী (রহ:) যিনি ‘আল-মাওয়াহিব আল-লাদুন্নিয়া’ শীর্ষক সীরাতের বই রচনা করেন, তিনি বলেন:

”মহানবী (ﷺসা)-এর বেলাদত তথা এ ধরণীতে শুভাগমন রাতে হয়েছে বলা হলে প্রশ্ন দাঁড়ায় যে দুটো রাতের মধ্যে কোনটি বেশি মর্যাদাসম্পন্ন - কদরের রাত (যা’তে কুরআন অবতীর্ণ হয়), নাকি রাসূলুল্লাহ (ﷺসা)-এর ধরাধামে শুভাগমনের রাত?

হুযূর পূর নূর (ﷺসা)-এর বেলাদতের রাত এ ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠতর ৩টি কারণে -

প্রথমতঃ নবী করীম (সাﷺ) এ বসুন্ধরায় আবির্ভূত হন মওলিদের রাতে, অথচ কদরের রাত (পরবর্তীকালে) তাঁকে মন্ঞ্জুর করা হয়। অতএব, মহানবী (সাﷺ)-এর আবির্ভাব, তাঁকে যা মন্ঞ্জুর করা হয়েছে তার চেয়েও শ্রেয়তর। তাই মওলিদের রাত
অধিকতর মর্যাদাসম্পন্ন।

দ্বিতীয়তঃ কদরের রাত যদি ফেরেশতাদের অবতীর্ণ হবার কারণে মর্যাদাসম্পন্ন হয়, তাহলে মওলিদের রাত মহানবী (সাﷺ) এ ধরণীতে প্রেরিত হবার বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। রাসূলুল্লাহ (সাﷺ) ফেরেশতাদের চেয়েও উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন, আর তাই মওলিদের রাতও শ্রেষ্ঠতর।

তৃতীয়তঃ কদরের রাতের বদৌলতে উম্মতে মোহাম্মদীকে বিশিষ্টতা দেয়া হয়েছে; অথচ মওলিদের রাতের মাধ্যমে সকল সৃষ্টিকে ফযিলাহ দেয়া হয়েছে। কেননা, মহানবী (সাﷺ)-কে সমগ্র সৃষ্টিজগতের জন্যে রহমত করে পাঠানো হয়েছে (আল-কুরআন ২১:১০৭)। অতএব, এই রহমত সমগ্র সৃষ্টিকুলের জন্যে সার্বিক।”

রেফারেন্স: ইমাম কসতলানী (রহ:) প্রণীত ‘আল-মাওয়াহিব আল-লাদুন্নিয়া’, ১ম খণ্ড, ১৪৫ পৃষ্ঠা। এ ছাড়াও ইমাম যুরকানী মালেকী স্বরচিত ‘শরহে মাওয়াহিবে লাদুন্নিয়া’, ১ম খণ্ড, ২৫৫-২৫৬ পৃষ্ঠা।

♦ ইমাম কসতলানী (রহ:) আরও বলেন: ”যাদের অন্তর রোগ-ব্যাধি দ্বারা পূর্ণ, তাদের কষ্ট লাঘবের জন্যে রাসূলুল্লাহ (ﷺসা) -এর মীলাদের মাস, অর্থাৎ, রবিউল আউয়ালের প্রতিটি রাতকে যাঁরা উদযাপন করেন তাঁদের প্রতি আল্লাহতা’লা দয়াপরবশ হোন!” [আল-মাওয়া আল-লাদুন্নিয়া, ১ম খন্ড]


♦ ভারত উপমহাদেশের আলেম শাহ ওলীউল্লাহ মোহাদ্দীসে দেহেলভী নিজের সেরা অভিজ্ঞতাগুলোর একটি বর্ণনা করেন:

মক্কা মোয়াযযমায় এক মীলাদ মাহফিলে আমি একবার অংশগ্রহণ করি। তাতে মানুষেরা রাসূলুল্লাহ (ﷺ)-এর প্রতি দরুদ-সালাম প্রেরণ করছিলেন এবং তাঁর বেলাদতের সময় (আগে ও পরে) যে সব অত্যাশ্চর্য ঘটনা ঘটেছিল, আর তাঁর নব্যুয়তপ্রাপ্তির আগে যে সব ঘটনা প্রত্যক্ষ করা হয়েছিল (যেমন - মা আমেনা হতে নূর বিচ্ছুরণ ও তাঁর দ্বারা নূর দর্শন, রাসূলুল্লাহ (সাﷺ)-এর বাবা আব্দুল্লাহর কপালে নূর দেখে তাঁকে এক মহিলার বিয়ের প্রস্তাব দেয়া ইত্যাদি), সে সম্পর্কে তাঁরা উল্লেখ করছিলেন। হঠাৎ আমি দেখলাম এ রকম এক দল মানুষকে নূর ঘিরে রেখেছে; আমি দাবি করছি না যে আমার চর্মচক্ষে এটি আমি দেখেছি; এও দাবি করছি না যে এটি রূহানীভাবে (দিব্যদৃষ্টি মারফত) দেখেছি, আর আল্লাহতা’লা-ই এই দুইয়ের ব্যাপারে সবচেয়ে ভাল জানেন। তবে ধ্যানের মাধ্যমে এই সব আনওয়ার (জ্যোতিসমূহ) সম্পর্কে আমার মাঝে এক বাস্তবতার উদয় হয়েছে যে এগুলো সে সকল ফেরেশতার আনওয়ার যাঁরা ওই ধরনের (মীলাদের) মজলিশে অংশগ্রহণ করেন। আমি এর পাশাপাশি আল্লাহর রহমত নাযেল হতেও দেখেছি। [ফুইয়ূয আল-হারামাইন, ৮০-৮১ পৃষ্ঠা]

♦ শাহ আবদুল আযীয মোহাদ্দীসে দেহেলভী যিনি রাফেযী শিয়াদের খণ্ডনে ‘তোহফা-এ-এসনা আশারিয়্যা’ শিরোনামের একটি বই লিখেছেন, তিনি বলেন:

রবিউল আউয়াল মাসের বরকত (আশীর্বাদ) রাসূলুল্লাহ (সাﷺ) -এর বেলাদত তথা ধরণীতে শুভাগমনের কারণেই হয়েছে। এই মাসে উম্মতে মোহাম্মদী যতো বেশি দরুদ-সালাম প্রেরণ করবেন এবং গরিবদের দান-সদকাহ করবেন, ততোই তাঁরা আশীর্বাদ লাভ করবেন। [ফতোয়ায়ে আযীযিয়্যা, ১:১২৩]

♦ মোল্লা আলী কারী যিনি ’শরহে মেশকাত’ শীর্ষক গ্রন্থপ্রণেতা ও হানাফী ফেকাহবিদ, তিনি বলেন:

আল্লাহতা’লা এরশাদ ফরমান, ‘নিশ্চয় তোমাদের কাছে তাশরীফ এনেছেন  তোমাদের মধ্য থেকে ওই রাসূল...’ (সূরা তাওবা, ১২৮ আয়াত),


♦বিখ্যাত ঐতিহাসিক আল্লামা ইয়াকুব রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার কিতাবে লিখেন-

قال النبي صلي الله عليه و سلم رايت ابا لهب في النار يصيح العطش العطش فيسقي من الماء في نقر ابهامه فقلت بم هذا فقال بعتقي ثويبة لانها ارضعتك

অর্থ : হাবীবুল্লাহ, হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, আমি আবু লাহাবকে দেখেছি জাহান্নামের আগুনে নিমজ্জিত অবস্থায় চিৎকার করে বলছে, পানি দাও ! পানি দাও !
অতঃপর তার বৃদ্ধাঙুলীর গিরা দিয়ে পানি পান করানো হচ্ছে | আমি বললাম, কি কারনে এ পানি দেয়া পাচ্ছো ? আবু লাহাব বললো, আপনার বিলাদত শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করে হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু আনহা উনাকে মুক্ত করার কারনে এই ফায়দা পাচ্ছি ! কেননা তিনি আপনাকে দুধ মুবারক পান করিয়েছেন !""

দলীল-
√ তারীখে ইয়াকুবী ১ম খন্ড ৩৬২ পৃষ্ঠা !

♦ইমাম সুহাইলী রহমাতুল্লাহি আলাইহি লিখেন:-

وذكر السهيلي ان العباس قال لما مات ابو لهب رايته في منامي بعد حول في شر حال فقال ما لقيت بعد كم راحة الا ان العذاب يخفف عني في كل يوم اثنين وذلك ان النبي صلي الله عليه و سلم ولد يوم الاثنين وكانت ثويبة بشرت ابا لهب بمولده فاعتقها

অর্থ: হযরত ইমাম সুহাইলী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি উল্লেখ করেন যে, হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তিনি বলেন, আবু লাহাবের মৃত্যুর এক বছর পর তাকে স্বপ্নে দেখি যে, সে অত্যন্ত দুরবস্থায় রয়েছে ! সে বললো, ( হে ভাই হযরত আব্বস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু) আপনাদের কাছ থেকে বিদায় নেয়ার পর আমি কোন শান্তির মুখ দেখি নাই |
তবে হ্যাঁ, প্রতি সোমবার শরীফ যখন আগমন করে তখন আমার থেকে সমস্ত আযাব লাঘব করা হয়, আমি শান্তিতে থাকি | হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তিনি বলেন,আবু লাহাবের এ আযাব লাঘব হয়ে শান্তিতে থাকার কারন হচ্ছে, হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ এর দিন ছিলো সোমবার শরীফ ! সেই সোমবার শরীফ এ হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফের সুসংবাদ নিয়ে আবু লাহাবের বাঁদী সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু আনহা তিনি আবু লাহাবকে জানালেন তখন আবু লাহাব বিলাদত শরীফের খুশির সংবাদ শুনে খুশি হয়ে হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু আনহা উনাকে তৎক্ষণাৎ আযাদ করে দেয় !""

দলীল--
√ ফতহুল বারী শরহে বুখারী ৯ম খন্ড ১১৮ পৃষ্ঠা !

√ ওমদাতুল ক্বারী লি শরহে বুখারী ২০ খন্ড ৯৫ পৃষ্ঠা !

√ মাওয়াহেবুল লাদুননিয়াহ ১ম খন্ড !

√ শরহুয যারকানী ১ম খন্ড ২৬০ পৃষ্ঠা !


♦৯ম শতাব্দীর মুজাদ্দিদ আলফে সানী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি মিলাদুন্নবী (সা) উদযাপন করেছেন:-

মির্জা হুসামুদ্দিন আহমেদ এর মিলাদ বিষয়ক এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,

نفس قرآں خواندن بصوتِ حسن و در قصائد نعت و منقبت خواندن چہ مضائقہ است؟ ممنوع تحریف و تغییر حروفِ قرآن است، والتزام رعایۃ مقامات نغمہ و تردید صوت بآں، بہ طریق الحان با تصفیق مناسب آن کہ در شعر نیز غیر مباح است. اگر بہ نہجے خوانند کہ تحریفِ کلمات قرآنی نشود. . . چہ مانع است؟-

অর্থঃ সুন্দর কন্ঠে কুর’আন তিলাওয়াত, নাত শারীফ পাঠে এবং মানকাবাত (ওলী-আল্লাহ এর প্রশংসামূলক কবিতা) পাঠে ভুল কি? নিষেথাজ্ঞা কেবল তখন প্রযোজ্য হবে যদি কুর’আন শারীফের শব্দ পরিবর্তন করা হবে, কুর’আন শারীফ এমনভাবে পাঠ করা যেন মনে হচ্ছে কেউ গান শুনে তালি দিয়া হচ্ছে যার অনুমতি নেই। যদি মিলাদ এভাবে পাঠ করা হয় যেন কুর’আন শারীফ সঠিকভাবে পাঠ করা হয়, কাসিদা গুরুত্বের সহিত সঠিকভাবে পাঠ করা হয় তাহলে এখানে ক্ষতি কি?
My friend, strict measure is to be taken to close the door [of carelessness], otherwise there is a famous saying that small things results in big matter"
[সূত্রঃ মাকতুবাত শারীফ (উর্দু) ভলি ০৩, চিঠি নং ৭২, পারসিয়ান দাফতার সোম, হিসসা হাশতাম]

কারও বিন্দুমাত্র সন্দেহ থাকলে নিচের লিঙ্কে গিয়ে স্ক্যান কপি নিজের চোখ দেখুন
http://en.islamieducation.com/refutation/imam-rabbani-on-mawlid.html


♦ বাদশাহ মুজাফফর মিলাদুন্নবী (সা) পালন করেছেন:-

ইবনে কাসীর লিখেন:-

أحد الاجواد والسادات الكبراء والملوك الامجاد له آثار حسنة وقد عمر الجامع المظفري بسفح قاسيون وكان قدهم بسياقه الماء إليه من ماء بذيرة فمنعه المعظم من ذلك واعتل بأنه قد يمر على مقابر المسلمين بالسفوح وكان يعمل المولد الشريف في ربيع الاول ويحتفل به احتفالا هائلا وكان مع ذلك شهما شجاعا فاتكا بطلا عاقلا عالما عادلا رحمه الله وأكرم مثواه وقد صنف الشيخ أبو الخطاب ابن دحية له مجلدا في المولد النبوي سماه التنوير في مولد البشير النذير فأجازه على ذلك بألف دينار وقد طالت مدته في الملك في زمان الدولة الصلاحية وقد كان محاصر عكا وإلى هذه السنة محمودالسيرة والسريرة قال السبط حكى بعض من حضر سماط المظفر في بعض الموالد كان يمد في ذلك السماط خمسة آلاف راس مشوى وعشرة آلاف دجاجة ومائة ألف زبدية وثلاثين ألف صحن حلوى
অর্থঃ “(মুযাফফর শাহ) ছিলেন একজন উদার/সহৃদয় ও প্রতাপশালী এবং মহিমান্বিত শাসক, যাঁর সকল কাজ ছিল অতি উত্তম। তিনি কাসিইউন-এর কাছে জামেয়া আল-মুযাফফরী নির্মাণ করেন.....(প্রতি) রবিউল আউয়াল মাসে তিনি জাঁকজমকের সাথে মীলাদ শরীফ (মীলাদুন্নবী) উদযাপন করতেন। উপরন্তু, তিনি ছিলেন দয়ালু, সাহসী, জ্ঞানী, বিদ্বান ও ন্যায়পরায়ণ শাসক - রাহিমুহুল্লাহ ওয়া একরাম - শায়খ আবুল খাত্তাব (রহ:) সুলতানের জন্যে মওলিদুন্ নববী সম্পর্কে একখানি বই লিখেন এবং নাম দেন ‘আত্ তানভির ফী মওলিদ আল-বাশির আন্ নাযীর’। এ কাজের পুরস্কারস্বরূপ সুলতান তাঁকে ১০০০ দিনার দান করেন। সালাহিয়া আমল পর্যন্ত তাঁর শাসন স্থায়ী হয় এবং তিনি ’আকা’ জয় করেন। তিনি সবার শ্রদ্ধার পাত্র থেকে যান।
”আস্ সাবত্ এক ব্যক্তির কথা উদ্ধৃত করেন যিনি সুলতানের আয়োজিত মওলিদ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন; ওই ব্যক্তি বলেন: ‘অনুষ্ঠানে সুলতান ভালভাবে রান্নাকৃত ৫০০০ ছাগল, ১০,০০০ মোরগ, ১ লক্ষ বৌল-ভর্তি দুধ এবং ৩০,০০০ ট্রে মিষ্টির আয়োজন করতেন’।”
[’তারিখে ইবনে কাসীর’, ‘আল-বেদায়াহ ওয়ান্ নেহায়া’ ১৩তম খণ্ড, ১৭৪ পৃষ্ঠা]
[তারীখে ইব্নে খাল্লিক্বান-৪/১১৭-১১৯]
[ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ুতী (রহ) : তফসীরে জালালাইন]
স্ক্যান কপি

http://www.ahlus-sunna.com/index.php?option=com_content&view=article&id=46&Itemid=29&limitstart=16

♦ হাফিজে হাদীস ইমাম যাহাবী রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার কিতাবে লিখেন-
ﻛﺎﻥ ﻣﺘﻮﺍﺿﻌﺎ ﺧﻴﺮﺍ ﺳﻨﻴﺎ ﻳﺤﺐ ﺍﻟﻔﻘﻬﺎﺀ
ﻭﺍﻟﻤﺤﺪﺛﻴﻦ
অর্থ: বাদশা হযরত মালিক মুজাফফরুদ্দীন ইবনে যাইনুদ্দীন রাহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি নম্র, ভদ্র ও উত্তম স্বভাবের অধিকারী ছিলেন। তিনি আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী ছিলেন। তিনি ফক্বীহ ও মুহাদ্দিসগনকে অত্যন্ত ভালবাসতেন।"
[সূত্রঃ- সিয়ারু আলামীন নবালা, ২২ তম খন্ড, ৩৩৬ পৃষ্ঠা]


♦ এ মহান বাদশার প্রশসায় উনার সমকালীন বিখ্যাত ইতিহাসবিদ আল্লামা ক্বাযী ইবনে খল্লিক্বান রাহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার কিতাবে লিখেন-
ﻭﻛﺮﻡ ﺍﻻﺧﻼﻕ ﻛﺜﻴﺮ ﺍﻟﺘﻮﺍﺿﻊ ﺣﺴﻦ
ﺍﻟﻌﻘﻴﺪﺓ ﺳﺎﻟﻢ ﺍﻟﻄﺎﻗﺔ ﺷﺪﻳﺪ ﺍﻟﻤﻴﻞ ﺍﻟﻲ
ﺍﻫﻞ ﺍﻟﺴﻨﺔ ﻭ ﺍﻟﺠﻤﺎﻋﺔ ﻻ ﻳﻨﻔﻖ ﻋﻨﺪ ﻣﻦ
ﺍﺭﺑﺎﺏ ﺍﻟﻌﻠﻮﻡ ﺳﻮﻱ ﺍﻟﻔﻘﻬﺎﺀ ﻭﺍﻟﻤﺤﺪﺛﻴﻦ
ﻭﻣﻦ ﻋﺪﺍﻫﻤﺎ ﻻ ﻳﻌﻄﻴﻪ ﺷﻴﺎ ﺍﻻ ﺗﻜﻠﻔﺎ
অর্থ: বাদশা হযরত মুজাফফরুদ্দিন ইবনে যাইনুদ্দীন রাহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি প্রসংসনীয়, চরিত্রের অধিকারী, অত্যধিক বিনয়ী ছিলেন। উনার আক্বীদা ও বিশ্বাস ছিল সম্পূর্ণ বিশুদ্ধ। তিনি আহলে সুন্নত ওয়াল জামাতের একনিষ্ঠ অনুসারী ছিলেন। তিনি আলিম উলামা, ফক্বীহ ও মুহাদ্দিসগন উনাদের পিছনে ব্যয় করা ব্যতীত সকল ক্ষেত্রে ব্যয় করার ব্যাপারে মিতব্যয়ী ছিলেন।"
[সূত্রঃ- ওয়াফইয়াতুল আ'ইয়ান, ৪র্থ খন্ড, ১১৯ পৃষ্ঠা]


♦প্রখ্যাত মুহাদ্দীস ইবন জোজী (রঃ) মন্তব্যে
“সর্বদা মক্কা ও মদিনাবাসী, মিসর, ইয়ামেন, সিরিয়াবাসী এবং আরবের পূর্ব-পশ্চিমের সকলেই মীলাদুন্নাবী (সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) অনুষ্ঠান করে থাকেন। রবিউল আউয়াল মাসের নব চন্দ্রের আগমনে আনন্দ উতসব করেন এবং তারা সকলেই এ সমস্ত অনুষ্ঠানাদি দ্বারা মহান পুরষ্কার ও সফলতা লাভ করেন”
[বিয়ান আল মীলাদুন্নাবী, পৃঃ ৫৮]

♦The mufassir al-Naqqash (266 AH- 351 AH) said in his Shifa' al-gharam (1:199) that “the birthplace of the Prophet (mawlid al-nabi) is a place where du`a on mondays is answered”.


♦Al-Azraqi (3rd century) mentioned the mawlid in the sense of the house where the Prophet was born, and he said that salat in that house was declared by the scholars as desirable (mustahabb) for the reason of seeking special blessing(tabarruk).
[See Akhbar Mekka (2:160)]


♦Ibn Jubayr (540AH-640AH) in his Kitab ar-Rihal (p. 114-115) mentions the Mawlid as a public commemoration taking place in Mecca in the House of the Prophet:
"every Monday of the month of Rabi` al-awwal."

♦ মাওলানা মুফতি এনায়েত আহমদ (রঃ) বলেন
“মকা ও মদীনা শারীফ এবং অধিকাংশ ইসলামি রাষ্ট্রে এ কথা প্রচলিত আছে যেপবিত্র রবিউল আউয়াল মাসে মীলাদুন্নাবী (সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর মাহফিল অনুষ্ঠিত করে মুসলমানদেরকে একত্রিত করে মিলাদ মাহফিল শারীফ পাঠ করা হত। ইহা একটি বিরাট বরকতময় কাজ এবং রাসূল (দঃ) এর সাথে ভালবাসা বৃদ্ধির একটি মাধ্যম। রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখ মদীনা ঘুনাওয়ারায় মসজিদে নববীতে এবং মক্কা শারীফে রাসূল (দঃ) এর জন্মস্থানে এ মাহফিল অনুষ্ঠিত হত।”
[তাওয়ারিখে হাবীবে ইলাহ, পৃঃ ১২]
তিনি উক্ত কিতাবে আরও বর্ণনা করেন
“সুতরাং মুসলমানদের রাসূল (দঃ) এর মহব্বত ভালবাসায় এ মাহফিল করা ও তাতে শরীক হওয়া উচিত।”

♦From the 7th-century, the account of ibn Battuta
The famous 8th-century historian Ibn Battuta relates in his Rihla, Vol.1, p. 309 and 347,
that on every Friday, after the salah, and on the birthday of the Prophet, the door of Ka`ba is opened by the head of the Banu Shayba, the doorkeepers of the Ka`ba, and that on the Mawlid, theShafi`i qadi (head judge) of Mecca,Najmuddin Muhammad Ibn al-Imam Muhyiddin al-Tabari, distributes food to the shurafa’ (descendants of the Prophet and to all the other people of Mecca.

♦ The 7th-century historians Abu al-Abbas al-Azafi and his son Abu al-Qasim al-Azafi wrote in their Kitab al-Durr al-Munazzam:
"Pious pilgrims and prominent travellers testified that, on the day of the mawlid in Mecca, no activities are undertaken, and nothing is sold or bought, except by the people who are busy visiting his noble birthplace, and rush to it. On this day the Kaabah is opened and visited."

মীলাদুন্নবীর (দুরুদ) রাত
শবে ক্বদরের মার্যাদা বেশী হওয়ার
কারণ, এ রাতে ক্বোরআন শরীফ নাযিল হয়েছ আর ১২ই রবিউল আউয়ালের মর্যাদা অধিক হওয়ার
কারণ, এ রাতে স্বয়ঃ ছাহেবে ক্বোরআন নূরে মুহাম্মদী তথা বিশ্বকরুণা, মাহবুবে খোদা, হাবিবুল্লাহ, হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা 'সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়াসাল্লাম' পবিত্র মক্কা শরীফে শুভাগমণ করেছেন ।
এই সময়ে মাকামে ইব্রাহীমের দিকে কাবা শরীফ ঝুঁকিয়ে সেজদা দিয়েছিল এবং পশু-পাখিরা, আপন আপন ভাষায় একে অন্যের
সাথে কথা বলেছিল,পৃথিবীর পূর্বও পশ্চিম প্রিয় নবী এর নূর মোবারকের ফলে জ্যোতির্ময়
হয়ে ফুটে উঠেছিল,তাঁর ভয়ে বিশ্বের সকল রাজা-বাদশাহর প্রাণ কেঁপে উঠেছিল, আর কত
কি আশ্চর্যজনক ঘটনা ।

Reference :-
♦সীরাতে হালবিয়া,
♦নূরে মুহাম্মদী,
♦বায়হাকী,
♦মাদারেজুন্নবুয়াত,
♦শাওয়াহেদুন্নবুয়াত,
♦মাওয়াহিবুলাদুন্নিয়া।


সৃষ্টির সেরা শুভ রজনী যে রজনীতে রত্নাগর্ভা আমিনা (রাঃ) ধারন করলেন রাসূলাল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম) এর নূর মুবারককে পবিত্র নূরানী গর্ভে :- সুবাহানাল্লাহ পড়ে পারলে শেয়ার করুন
-- এ রজনীতে শয়তানদের বনী আদমকে বিভ্রান্ত করার সকল কৌশল বন্ধ হয়ে গেল।
-- ফেরশতাকুল শয়তানের সিংহাসন উল্টিয়ে সমুদ্রে ফেলে দিল।
-- জৈনক ফেরেশতা এটাকে সমুদ্রে চল্লিশ দিন পর্যন্ত ডুবাতে থাকল।
-- ফেরশতাকুল শয়তানকে ভীষন প্রহার করল,,ফলে সে আবূ কোবাইস নামক পাহারে আত্নগোপন করতে বাধ্য হলো।
-- সে সেখানে ভীষন চিত্‍কার করতে থাকল।চিতকার শুনে তার দল লশকর সকলে এসে উপস্থিত হলো।
তারা বলল,,হে দলপতি!আপনি ক্রন্দন করছেন কেন?সে বললঃমহা বিপদ উপস্থিত।অত্র রাত্রিতে নূরে মুহাম্মদী মাতৃগর্ভে স্থিতি লাভ করেছে।
-- তার দরুনই দুনিয়া ও আখিরাতের ইজ্জত,,
-- সে নগ্ন তলোয়ার নিয়ে আবির্ভূত হবে।
---- ফলে আমার বেঁচে থাকা মুশকিল হয়ে পড়বে,,
-- সে পূর্ববতী ধর্মগুলো রহিত (মূলোচ্ছেদ) করে দিবে;
-- মূর্তিসমূহ ধ্বংস করে দিবে;
-- ব্যভিচার,,শারাবখোরী ও জুয়া হারাম করে দিবে;
-- জৌতিষ্কের বিদ্যা বিলুপ্ত করবে;
-- হক কথা বলবে;
-- ইনসাফে শ্রীবৃদ্ধী সাধন করবে;
-- আসমানের তারকামালার ন্যায় মসজিদসমূহ মিটমিট করে জ্বলতে থাকবে;
-- প্রতি স্থানে আল্লাহর নাম নিবে;
-- তার জামায়াতকে আকড়িয়ে থাকবে;এ সমস্তে আমার কোন ফন্দী চলবেনা।
Reference :-
(সূত্র- রাওজাতুল আহবাব)



হযরত ইমাম জালালুদ্দীন সুয়ূতী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন-

قَالَ سُلْطَانُ الْعَارِفِيْنَ الْاِمَامُ جَلالُ الدِّيْنِ السُّيُوْطِىُّ قَدَّسَ اللهُ سِرَّهٗ وَنَوَّرَ ضَرِيْحَهُ فِىْ كِتَابِهِ الُمُسَمّٰى الْوَسَائِلِ فِىْ شَرْحِ الشَّمَائِلِ" مَا مِنْ بَيْتٍ اَوْ مَسْجِدٍ اَوْ مَحَلَّةٍ قُرِئَ فِيْهِ مَوْلِدُ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ اِلا حَفَّتِ الْمَلٰئِكَةُ ذٰلِكَ الْبَيْتَ اَوِ الْمَسْجِدَ اَوِ الْمَحَلًّةَ صَلَّتِ الْمَلٰئِكَةُ عَلٰى اَهْلِ ذٰلِكَ الْمَكَانِ وَعَمَّهُمُ اللهُ تَعَالٰى بِالرَّحْمَةِ وَالرِّضْوَانِ واَمَّا الْمُطَوَقُّوْنَ بِالنُّوْرِ يَعْنِىْ جِبْرَائيلَ وَمِيْكَائِيْلَ وَاِسْرَافِيْلَ وَعَزْرَائِيْلَ عَلَيْهِمُ السَّلامُ فَاِنَّهُمْ يُصَلُّوْنَ عَلٰى مَنْ كَانَ سَبَبًا لِقَرَائَةِ مَوْلِدِ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَاِذَا مَاتَ هَوَّنَ اللهُ عَلَيْهِ جَوَابَ مُنْكِرٍ وَنَكِيْرٍ وَيَكُوْنُ فِىْ مَقْعَدِ صِدْقٍ عِنْدَ مَلِيْكٍ مُّقْتَدِرٍ.

অর্থ: “যে কোন ঘরে অথবা মসজিদে অথবা মহল্লায় পবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপন করা হয় সেখানে অবশ্যই আল্লাহ পাক- উনার ফেরেশতাগণ বেষ্টন করে নেন। আর উনারা সে স্থানের অধিবাসীগণের উপর ছলাত-সালাম পাঠ করতে থাকেন। আর আল্লাহ পাক উনাদেরকে স্বীয় রহমত ও সন্তুষ্টির আওতাভুক্ত করে নেন। আর নূর দ্বারা সজ্জিত প্রধান চার ফেরেশতা অর্থাৎ হযরত জিবরায়ীল, মীকায়ীল, ইসরাফীল ও আযরায়ীল আলাইহিমুস সালামগণ মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপনকারীগণের উপর ছলাত-সালাম পাঠ করেন। যখন উনারা ইনতিকাল করেন তখন আল্লাহ পাক উনাদের জন্য মুনকার-নাকীরের সুওয়াল-জাওয়াব সহজ করে দেন। আর উনাদের অবস্থান হয় আল্লাহ পাক- উনার সন্নিধানে ছিদ্দিক্বের মাক্বামে।” সুবহানাল্লাহ্!

দলিল-


√ ওয়াসিল ফি শরহে শামায়িল

√ আন নিয়ামাতুল কুবরা আলাল আলাম ১০ পৃষ্ঠা



এই উপমহাদেশে যিনি হাদীছ শাস্ত্রের প্রচার-প্রসার করেছেন, যিনি ক্বাদিরিয়া তরীক্বার বিশিষ্ট বুযূর্গ, ইমামুল মুহাদ্দিছীন হযরত আব্দুল হক্ব মুহাদ্দিছ দেহলভী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন-

مَنْ عَظَّمَ لَيْلَةَ مَوْلِدِهٖ بِمَاۤ اَمْكَنَهٗ مِنَ التَّعْظِيْمِ وَالاِكْرَامِ كَانَ مِنَ الْفَائزِيْنَ بِدَارِ السَّلامِ.

অর্থ: “যে ব্যক্তি তার সাধ্য ও সামর্থ্য অনুযায়ী পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপন করবে, সে জান্নাতে বিরাট সফলতা লাভ করবে।” সুবহানাল্লাহ্!

দলীল-
√ মাছাবাতা বিস সুন্নাহ ১ম খন্ড


বিখ্যাত ইমাম হযরত ইমাম মারূফ কারখী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন-

قال المعروف الكرخى رحمة الله عليه مَنْ هَيَّأَ طَعَامًا لاَجْلِ قِرَائَةِ مَوْلِدِ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَجَمَعَ اِخْوَانًا وَاَوْقَدَ سِرَاجًا وَلبِسَ جَدِيْدًا وَتَبَخَّرَ وَتَعَطَّرَ تَعْظِيْمًا لِمَوْلِدِ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ حَشَرَهُ اللهُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ مَعَ الْفِرْقَةِ الاُوْلٰى مِنَ النَّبِيّنَ وَكَانَ فِىْ اَعْلٰى عِلِّيِّيْن.

অর্থ: “যে ব্যক্তি পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে খাদ্যের আয়োজন করে, অতঃপর লোকজনকে জমা করে, মজলিসে আলোর ব্যবস্থা করে, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নতুন পোশাক পরিধান করে, সুঘ্রাণ ও সুগন্ধি ব্যবহার করে, আল্লাহ পাক তাকে নবী আলাইহিমুস সালামগণের প্রথম কাতারে হাশর করাবেন এবং সে জান্নাতের সুউচ্চ মাক্বামে অধিষ্ঠিত হবেন।” সুবহানাল্লাহ্!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ৮ পৃষ্ঠা ।



ইমাম ফখরুদ্দিন রাজি (রহ) বলেন-

مَا مِنْ شَخْصٍ قَرَاَ مَوْلِدَ النَّبِىِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَلٰى مِلْحٍ اَوْ بُرٍّ اَوْشَىء اٰخَرَ مِنَ الْمَأكُوْلاتِ اِلا ظَهَرَتْ فِيْهِ الْبَركَةُ فِىْ كُلِّ شَىء. وَصَلَ اِِلَيْهِ مِنْ ذٰلِكَ الْمَأكُوْلِ فَاِنَّهٗ يَضْطَرِبُ وَلا يَسْتَقِرُّ حَتى يَغْفِرَ اللهُ لاٰكِلِهٖ.

অর্থ: যে ব্যক্তি পবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপন করে লবণ, গম বা অন্য কোন খাদ্য দ্রব্যের উপর ফুঁক দেয়, তাহলে এই খাদ্য দ্রব্যে অবশ্যই বরকত প্রকাশ পাবে। এভাবে যে কোন কিছুর উপরই পাঠ করুক না কেন, তাতে বরকত হবেই। উক্ত খাদ্য-দ্রব্য মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপনকারীর জন্য আল্লাহ পাক- উনার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করে, এমনকি তাকে ক্ষমা না করা পর্যন্ত সে ক্ষান্ত হয় না।” সুবহানাল্লাহ!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ৯ পৃষ্ঠা



হযরত ইমাম সাররী সাকতী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন-

قال السر سقتى رحمة الله عليه مَنْ قَصَدَ مَوْضعًا يُقْرَأُ فِيْهِ مَوْلِِدُ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَقَدْ قَصَدَ رَوْضَةً مِنْ رِيَاضِ الْجَنَّةِ لاَنَّهٗ مَا قَصَدَ ذٰلِكَ الْمَوْضعَ اِلا لِمُحَبَّةِ النَّبِىِّ صَلّٰى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ.

অর্থ: “যে ব্যক্তি পবিত্র মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উদযাপন করার জন্য স্থান নির্দিষ্ট করলো সে যেন নিজের জন্য জান্নাতে রওযা বা বাগান নির্দিষ্ট করলো। কেননা সে তা হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম- উনার মুহব্বতের জন্যই করেছে। আর আল্লাহ পাক- উনার রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি আমাকে ভালবাসবে সে আমার সাথেই জান্নাতে থাকবে।” সুবহানাল্লাহ্!

দলীল-
√ আন নি'মাতুল কুবরা আলাল আলাম ১০ পৃষ্ঠা




♦ইবনে জাওজী বলেন, “যখন ঐ আবু লাহাব কাফির,যার তিরস্কারে কোরআনে সূরা নাজিল হয়েছে। মিলদুন্নাবী (দ.) এ আনন্দ প্রকাশের কারনে জাহান্নামে পুরস্কৃত হয়েছে। এখন উম্মতে মুহাম্মাদী (সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম) এর ঐ একত্ববাদী মুসলমানের কি অবস্থা? যে নবী কারীম (সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওয়াসাল্লাম) এর বেলাদাতে খুশি হয় এবং রাসুল (দ.) এর ভালবাসায় তার সাধ্যনুযায়ী খরচ করে!



♦হাফেয আবদুর রহমান ইবনে ইসমাইল (রহঃ)
হাফেয আবদুর রহমান ইবনে ইসমাইল (ওফাত: ৯৬৫ হিজরী) যিনি আবু শামাহ নামে সমধিক প্রসিদ্ধ, তিনি তাঁর ‘আল-বা’য়েস আ’লা এনকার আল-বেদআ’ ওয়াল হাওয়াদিস’ পুস্তকে বলেন, বেদআতে হাসানা বা নতুন প্রবর্তিত উত্তম/কল্যাণকর প্রথাগুলোর অন্যতম হলো মীলাদুন্নবী (দ:)-এর দিন উদযাপনের জন্যে যা যা করা হয়; যেমন – দান-সদকাহ করা, অন্যান্য সওয়াবদায়ক আমল পালন এবং খুশি প্রকাশ করা। গরিবদের প্রতি দয়াশীল হওয়ার পাশাপাশি এ রকম একটি আমল মহানবী (দ:)-এর প্রতি কারো মহব্বত, প্রশংসা ও গভীর শ্রদ্ধার ইঙ্গিত বহন করে এবং তাঁকে নেয়ামতস্বরূপ (আমাদের মাঝে) প্রেরণের জন্যে তা আল্লাহর প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে থাকে।

♦হাফেয সাখাভী (রহঃ)
হাফেয সাখাভী (ওফাত: ৯০২ হিজরী) তাঁর ’ফাতাওয়া’ গ্রন্থে বলেন, মওলিদ উদযাপন হিজরী তৃতীয় শতকের পরে আরম্ভ হয়। অতঃপর ইসলামী জনসমাজ সকল শহর ও নগরে দান-সদকা, মহানবী (দ:)-এর মীলাদ-বর্ণনার মতো নানা সওয়াবদায়ক আমল পালন করে এর উদযাপন করে আসছেন।



♦ইমাম হাফেয জালালউদ্দীন সৈয়ুতী (রহঃ)
ইমাম হাফেয জালালউদ্দীন সৈয়ুতী (বেসাল: ৯১১ হিজরী) তাঁর ‘হুসনুল মাকসিদ ফী ‘আমালিল মাওলিদ’ পুস্তকে বলেন, মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনের উদ্দেশ্যে মানুষজনকে সমবেত করা, কুরআন মজীদের আয়াতে করীমা তেলাওয়াত করা, মহানবী (দ:)-এর জন্মবৃত্তান্ত আলোচনা, তাঁর বেলাদতের (ধরণীতে শুভাগমনের) সাথে সম্পর্কিত বিস্ময়কর অলৌকিক ঘটনাবলীর উল্লেখ করা, এবং এই উপলক্ষে মানুষকে খাবার পরিবেশন করা সেই সকল বেদআতে হাসানা (কল্যাণকর ও সওয়াবদায়ক নতুন প্রবর্তিত আমল)-এর শ্রেণীভুক্ত যা মহানবী (দ:)-এর প্রতি আনুগত্য ও যথাযথ সম্মান প্রতিফলন করে।




♦শায়খ মোহাম্মদ ইলিয়াশ (রহঃ)
মালেকী মযহাবের আলেম শায়খ মোহাম্মদ ‘ইলিয়াশ (ওফাত: ১২৯৯ হিজরী) তাঁর ’আল-কওল আল-মুনজিয়ী’ কেতাবে বলেন, ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) আনুষ্ঠানিকভাবে সর্বপ্রথম পালন করা হয় হিজরী ৬ষ্ঠ শতকে। এটি প্রবর্তন করেন ইরবিলের ন্যায়পরায়ণ সুলতান মোযাফফর শাহ। ওই সব অনুষ্ঠানে তিনি উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন আলেম-উলেমা ও মহান সূফীবৃন্দসহ সকলকে আমন্ত্রণ জানাতেন। যে মেজবান খাওয়ানো হতো তাতে অন্তর্ভুক্ত থাকতো ৫০০০ দুম্বার রোস্ট, ১০০০০ মোরগ ও ৩০০০০ প্লেট মিষ্টি। সেই সময় থেকে অদ্যাবধি মুসলমান সমাজ রবিউল আউয়াল মাসে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপন করে আসছেন। এর আয়োজনে তাঁরা মানুষকে খাওয়ানো, গরিব-দুঃস্থদের মাঝে দান-সদকাহ এবং অন্যান্য প্রশংসনীয় (মোস্তাহাব) আমল পালন করেন। এই আমল (ইসলামী আচার) তাঁদেরকে বিগত বছরগুলোতে মহা রহমত-বরকত অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

♦ইমাম হাফেয ইবনে হাজর আসকালানী (রহঃ)
ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) সম্পর্কে ইমাম হাফেয ইবনে হাজর আসকালানী (রহ:) বলেন, ঈদে মীলাদুন্নবী (দ:) উদযাপনে যে সব নেক বা পুণ্যময় কাজ করা যায় তাতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে – মহানবী (দ:)-এর প্রতি (শোকরিয়াসূচক) খুশি উদযাপন ও আনুগত্য প্রদর্শন; পুণ্যবান ও গরিব মানুষকে সমবেত করে তাঁদেরকে খাওয়ানো; নেক আমল পালন ও মন্দ বেদআত বর্জনে উদ্বুদ্ধ করে এমন ইসলামী নাশিদ/না’ত/সেমা/কাওয়ালী/পদ্য আবৃত্তি বা পরিবেশন; রাসূলুল্লাহ (দ:)-এর প্রশংসাসূচক (এ ধরনের) শে’র-পদ্য-সেমা আবৃত্তিকে সে সকল শ্রেষ্ঠ মাধ্যমের অন্তর্গত বলে বিবেচনা করা হয় যা দ্বারা কারো অন্তর তাঁর প্রতি মহব্বত-আকৃষ্ট হয়।



♦Khalil Ahmed Sahranpuri in Al-Muhannad broke all barriers when he said:: What are we, not even a single Muslim can consider Dhikr of birth of Prophet (saw), rather dhikr of his shoe!!!

♦Imam Subki said, “When we were celebrating the Prophet’s birthday, a great uns (familiarity) comes to our heart, and we feel something special.”

♦ Allama Ibn Kathir in his book, Mawlid-ur-Rasool-ullah (Peace be upon him) writes, “The Night of the Prophet’s birth is a magnificent, noble, blessed and holy night, a night of bliss for the believers, pure, radiant with lights, and of immeasurable price.” [page 19]

♦Maulana Abdul Hai Luckhnawi (Rahimuhullah) said:

When a kafir of Abu Lahab’s calibre gets rewarded upon rejoicing on birth of Prophet (saw), then an Ummati who gets happy on his birth and spends due to his love for him would of course be established on high standards, just like it has been mentioned by Ibn Jawzi (rahimuhullah) and Sheikh Muhadith Haq Dhelvi (Rahimuhullah) [Abdul Hai in Majmua al Fatawa, Volume 2, Page No. 282]

♦The great Mufasir and Sufi, Hadrat Ismail Hiqqi (Rahimuhullah) said:

To celebrate Mawlid is amongst the great tributes to Prophet (salallaho alaihi wasalam), but the condition is that it should be clear of evil things. Imam Suyuti (rah) has said: It is Mustahab for us to be happy on birth of Prophet (salallaho alaihi wasalam) [Tafsir Ruh ul Bayan, Volume 9, Page No. 52]

♦Imam Shams-ud-din Dimishqi (Rahimuhullah) writes:

قد صح أن أبا لهب يخفف عنه عذاب النار في مثل يوم الاثنين لإعتاقه ثويبة سرورا بميلاد النبي صلى الله عليه وسلم ثم أنشد:

إذا كان هذا كافرا جاء ذمه * وتبت يداه في الجحيم مخلدا
أتى أنه في يوم الاثنين دائما * يخفف عنه للسرور بأحمدا
فما الظن بالعبد الذي طول عمره * بأحمد مسرورا ومات موحدا

Translation: It is proven that Abu Lahab’s punishment of fire is reduced on every Monday because he rejoiced on brith of Prophet (salallaho alaihi wasalam) and freed the slave-woman Thawba (RA)When Abu Lahab, whose eternal abode is hell fire and regarding whom whole surah of Tabat Yada (i.e. Surah Lahab) was revealed, he gets Takhfif in his Adhaab every Monday then Imagine the situation of a (momin) who has spent his life in rejoicing over birth of Prophet (saw) and died as a Mawhid [ Mawrid as Sadi Fi Mawlid al Hadi by Imam al-Dimishqi and Imam Suyuti in Hassan al Maqsad fi Amal al Mawlid, Page No. 66]


ওহাবী সালাফী নেতাগনের মিলাদুন্নবী উদযাপন:-


♦• The founder of Jama’t Islami Pakistan and a very prominent leader of Salafi beliefs Maulana Abul A’la Maudoodi says,“Though, Islamic law has not declared the birthday of Prophet Muhammad (P.B.U.H) as EID, nor has it established any customary practice for its celebration, but if people consider it as EID, due to this being the day of arrival of the greatest Prophet (P.B.U.H) of Allah and the peerless saviour of the world, and observe it as a day on which the biggest blessing of Allah for mankind came into existence, then there is no harm either.” [Speech on 12th Rabi Al Awwal on All India Radio, March 30, 1942]

♦Although, Dr. Zakir Naik is against the celebration of Eid Milad un Nabi but Zakir Naik claims that he learnt Islam from Maulana Ahmed Deedat of South Africa. There are several videos on youtube, Maulana Ahmed Deedat in which he says that he celebrates Eid Milad un Nabi and he encourages people to do the same. He confronted the ignorance about Eid Milad un Nabi directly.

http://www.youtube.com/watch?v=bj8F1qv25dk

http://www.youtube.com/watch?v=DmsQZ5GI6f0

♦Ibn Taymiyyah in his book “Majma’ Fatawa Ibn Taymiyya”, Vol. 23, p. 163 and his book “Iqtida’ al-sirat al-mustaqim”, p. 294-295,296,297 wrote as follows.

QUOTE “To celebrate and to honor the birth of the Prophet(صلى الله عليه و آله وسلم) and to take it as an honored season is good and in it there is a great reward, because of their good intentions in honoring the Prophet (صلى الله عليه و آله وسلم).”UNQUOTE

♦Ibn Taymiyyah in his book “Necessity of the Right Path”, p. 266, 5th line from the bottom of that page, published by Dar Al-Hadith, has written the following :

QUOTE – “As far as what people do during the Milad, either as a rival celebration to that which the Christian do during the time of Christ’s birthday or as an expression of their love and admiration and a sign of praise for the Noble Nabi (صلى الله عليه و آله وسلم), the angels pray for their absolution (Allah Almighty will surely reward them for such Ij’tiha)”

♦হাজ্বী ইমদাদুল্লাহ সাহেব ::
ফয়সালায়ে হাফতে মাসায়েল পুস্তকের ৫ম পৃষ্ঠার একটি উদ্ধৃতি ::
مشرب فقير كايه ھے محفل مولود شريف مين شريك هوتا هون بلكه ذريه بركات سمجهكر هر سال منعقد كرتا هون اور قيام مين لطف ولزت پاتا ھون
> অর্থাৎ ::
"ফকিরের (আমার) মত এই যে , আমি মৌলুদ শরিফের মাহফিলে শরিক হই। আর ইহাকে বরকতের কারণ মনে করিয়া প্রত্যক বৎসর অনুষ্ঠান করিয়া থাকি এবং কিয়াম করার সময় খুবই স্বাদ ও আনন্দ উপভোগ করি।"


ভালমত একটা জিনিষ খেয়াল করলে দেখবেন। দেওবন্দীরা দলীল দিচ্ছে সম্পূর্ণ তাদের কয়েকজন নির্দিষ্ট বুজুর্গদের কিতাব থেকে যারা মিলাদের বিরোধীতা করেন। কিন্তু দেওবন্দীদের যারা মিলাদ-কিয়ামকে সমর্থন দিয়ে এসেছেন যেমন- হাজি ইমদাদুল্লাহ মুহাজির মক্কী, আশরাফ আলি থানভি, মুফতি শফী উসমানি, শামসুল হক ফরিদপুরী, খলীল আহমাদ সাহারানপুরি, আব্দুল হক এলাহাবাদী মোহাজেরে মক্কী (রঃ) সহ অনেক
 আলেমদের কিতাব তারা সুকৌশলে গোপন করে গেছে ঠিক যেই কাজটি তারা সাধারণ মুসলমানদের সাথে করে থাকে। উনারা যে মিলাদের সমর্থনে ছিলেন এবং পালন করতেন তার প্রমাণ এই তিনটি ভিডিওতে দেখুন
১. https://www.facebook.com/photo.php?v=805555929469800
২. https://www.facebook.com/photo.php?v=806220539403339
৩. https://www.facebook.com/photo.php?v=806989452659781


যেসব Scholars, মুহাদ্দিসিন, মুফাসসিরিন এবং ইমামগন
মীলাদুন্নবীর পক্ষে নিজেদের কিতাবে দলিল প্রমান সহ লিখে গিয়েছেন:-

The Majority of the scholars accepted celebrate miladunnabi(sm)-----------------

The Majority of Ummah Celebrate::::::::::::::::::

----------------------------Hanafis:----------------------------

Among the Hanafīs on the fivefold Classification, those who accepted this division:

~al-Kirmānī,

~Ibn ‘ābidīn,

~al-Turkmānī,

~al-’Aynī, and

~al-Tahānawī.

~( Al-Kirmānī, al-Kawākib al-Darārī Sharh Sahīh al-Bukhārī (9:54),

~Ibn ‘Ābidīn, Hāshiya (1:376, 1:560);

~al-Turkmānī, al-Luma’ fīl-Hawādith wal-Bida’ (Stuttgart, 1986, 1:37);

~al-Tahānawī,

~Kashshāf Istilāhat al-Funūn (Beirut, 1966, 1:133-135);

~al-`Aynī, Umdat al-Qārī in al-Himyarī, al-bid’aht al-Hasana (p. 152-153).

~Imam Qutb al-Din al-Hanafi,

~ al-I`lam bi a`lam bayt Allah al-haram

~Imam Muhammad ibn Jar Allah ibn Zahira,

~al-Jami`al-latif

~Abd al-Haqq Muhaddith Dihlawi, Ma thabata min al-sunna

~Shah `Abd al-Rahim Dihlawi, al-Durr al-thamin

~Shah Wali Allah Dihlawi, Fuyud al-haramayn

~Mufti `Inayat Allah Kakurawi, Tarikh Habib Allah

~Mufti Muhammad Mazhar Allah Dihlawi, Fatawa mazhari

~Mulla `Ali al-Qari, al-Mawrid al-rawi fi Mawlid al-nabi.

~Haji Imdad Allah Muhajir Makki, Shama’im imdadiyya

~Muhaddith `Abd al-Hayy al-Lucknawi, Fatawa `Abdal-Hayy

~~~~~~~~Malikis:~~~~~~~~~

-------Among the Hanafīs on the fivefold Classification, those who accepted this division:

~al-Turtūshī,

~Ibn al-Hājj,

~al-Qarāfī, and

~al-Zurqānī,

~al-Shātibī attempts a refutation and claims that the fivefold classification is “an invented matter without proof in the Law”. ( Al-Turtūshī, Kitāb al-Hawādith wa al-Bida’ (p. 15, p. 158-159);

~Ibn al-Hajj, Madkhal al-Shar’ al-Sharīf (Cairo, 1336/1918 2:115);

~al-Qarāfī, al-Furūq (4:219) cf.

~al-Shātibī, al-I’tisām (1:188-191);

~al-Zurqānī, Sharh al-Muwatta’ (1:238).

~Al-Shātibī’s I’tisām was recirculated by two Wahhābīs:

~Rashīd Ridā then Salīm Hilālī. A third Wahhābī, Muhammad ‘Abd al-Salām Khadir al-Shuqayrī – Ridā’s student

~Hafiz Ibn Dihya al-Kalbi, al-Tanwir fi mawlid al-bashir al-nadhir

~Imam al-Turtushi, Kitab al-hawadith wa al-bida` (indirectly)


~Imam al-Faqih Abu al-Tayyib Muhammad ibn Ibrahim al-Sabti (d. 695),

~ al-Adfawi in Suyuti’s Husn al-maqsid Abu `Abd Allah Sayyidi Muhammad ibn `Abbad al-Nafzi, al-Rasa’il al-kubra

~Shaykh Jalal al-Din al-Kattani, Rawdat al-Jannat fi Mawlid khatim al-risalat, also quoted in Sakhawi’s Subul al-huda

~Shaykh Nasir al-Din ibn al-Tabbakh, quoted in Sakhawi’s Subul al-huda

~Shaykh Muhammad ibn `Alawi al-Makki, al-Ihtifal bi dhikra al-mawlid

~~~~~~~~~~Shafi`is:~~~~~~~~~~

Among the Hanafīs on the fivefold Classification: Consensus among the Shāfi’īs.

~( Abū Shāma, al-Bā’ith ‘alā Inkār al-Bida’ wa al-Hawādith (Riyad: Dār al-Raya, 1990 p. 93, Cairo ed. p. 12-13) as well as those already mentioned. Note: “consensus” ( ijmā’) is more inclusive than “agreement” ( ittifāq), and binding.)

~Hafiz Abu Shama, al-Ba`ith `ala inkar al-bida` wa al-hawadith

~Hafiz Shams al-Din al-Jazari, `Urf al-ta`rif bi al-mawlid ash-Sharif.

~Hafiz Shams al-Din ibn Nasir al-Din al-Dimashqi, al-Mawrid al-sadi fi mawlid al-hadi;

~Jami` al-athar fimawlid al-nabi al-mukhtar;

~al-lafz al-ra’iq fi mawlidkhayr al-khala’iq

~Hafiz Zayn al-Din al-`Iraqi, al-Mawrid al-hani fi al-mawlid al-sani

~Hafiz al-Dhahabi, Siyar a`lam al-nubala’ (indirectly)

~Hafiz Ibn Kathir, Kitab Mawlid an-Nabi, and al-Bidaya p. 272-273.

~Hafiz Ibn Hajar al-`Asqalani, as quoted by Suyuti inal-Hawi.

~Qastallani, al-Mawahib al-laduniyya

~Hafiz al-Sakhawi, Subul al-huda, also quoted in Qari, al-Mawrid al-rawi

~Imam Ibn Hajar al-Haytami, Fatawa hadithiyya; al-Ni`mat al-kubra `ala al-`alam fi mawlid sayyid waladi Adam; Tahrir al-kalam fi al-qiyam `inda dhikr mawlid sayyid al-anam; Tuhfat al-akhyar fi mawlid al-mukhtar
Hafiz Wajih al-Din `Abd al-Rahman al-Zabidi al-Dayba` (d. 944Kitab al-mawlid.
~Zahir al-Din Ja`far al-Misri, quoted in Sakhawi’s Subul al-huda

~Muhammad ibn Yusuf al-Salihi ash-Shami, quoted in Sakhawi’s Subul al-huda

~Kamal al-Din al-Adfawi, al-Tali` al-sa`id

~Hafiz al-Suyuti, Husn al-Maqsid fi `amal al-Mawlid in his al-Hawi li al-fatawi al-Zarqani, Sharh al-mawahib

~Abu Zur`a al-`Iraqi, as quoted in Muhammad ibn

~Siddiq al-Ghumari’s Tashnif al-adhan.

~~~~~~~~~Hanbalis:~~~~~~~~~~

Among the hanbalis on the fivefold Classification:

Reluctant acceptance among later Hanbalīs, who altered Al-Shāfi’ī and Ibn ‘Abd al-Salām’s terminology to read “lexical innovation” ( bid’a lughawiyya) and “legal innovation” ( bid’a shar’iyya), respectively – although inaccurately – matching al-Shāfi`ī’s “approved” and “abominable.

~( Ibn Rajab, al-Jāmi’ fīl-’Ulūm wal-Hikam (2:50-53), and Ibn Taymiyya’s section on bid’ah in his Iqtidā’ al-Sirāt al-Mustaqīm Mukhālafat Ashāb al-Jahīm. This is also the position of Ibn Kathīr: see his commentary of the verse: ( The Originator of the heavens and the earth! ) [2:117] in his Tafsīr. He followed in this his teacher Ibn Taymiyya).
--- )




বিভিন্ন দেশে কোটি কোটি সুন্নী মুসলমান এই সুন্নত মিলাদ কিয়াম করে যাচ্ছে :-

Mawlid in Darul Mustafa

http://m.youtube.com/watch?v=6afElzXOm7Y

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Mawlid In Dubai 2011

http://m.youtube.com/watch?v=Y8mQDQqhLlg

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

MAWLID of Prophet ﷺ - Habib Hassan al-Kaf and Shaykh Farid

http://m.youtube.com/watch?v=zwGp57o8JMs

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Ya Nabi Salam Alayka يا نبي سلام عليك
http://m.youtube.com/watch?v=Awfq_5K6E3w

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

[HD] Mawlid 2013 Ahbab Al Mustafa - Westella

http://m.youtube.com/watch?v=GLXoLS2iftY

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

[ 24 January 2013 ] Peringatan Maulid Nabi Muhammad SAW bersama Majelis Rasulullah SAW

http://m.youtube.com/watch?v=jqtqZQYQVKM

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Ceramah USTADz CEPOT Tema Maulid Nabi Muhammad SAW 1435H 14 Januari 2014

http://m.youtube.com/watch?v=7_MrRotuTfU
๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Mamah dan AA Spesial Maulid Nabi Muhammad SAW Part 2 @Indosiar 14 Januari 2014
http://m.youtube.com/watch?v=87MFWXgnggw

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

All Arab Celebrate Milad un Nabi* in the World (English Speech) By Shaykh Dr.Tahir ul Qadri
http://m.youtube.com/watch?v=9HoahTKFLns

Kindertheater MAWLID 25.02.2012 SALZGITTER

http://m.youtube.com/watch?v=TYP5mVFF6d4

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

[ 24 January 2013 ] Peringatan Maulid Nabi Muhammad SAW bersama Majelis Rasulullah SAW
http://m.youtube.com/watch?v=jqtqZQYQVKM

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑
MAWLID 2011 ISTAMBUL TURKEY
http://m.youtube.com/watch?v=dA7u81x9HBI

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑
BREKING NEWS PAKISTAN 14 JAN 2014 JASHAN-E-EID MILAD UN NABI (PBUH)

http://m.youtube.com/watch?v=AH5IV9JIPE8
๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

MILAD UN NABI RALLY ALL OVER HYDERABAD 2014

http://m.youtube.com/watch?v=VJHFOHgbuE8

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

MILAD UN NABI ERRAGADDA NETHAJI NAGAR 2014

http://m.youtube.com/watch?v=KcD6AKy_QhA

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Milad un Nabi 2014 Rally in Nampally Hyderabad

http://m.youtube.com/watch?v=IDgad0MNdA8

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

Full Akbaruddin owaisi - Addressing Milad-un-Nabi Jalsa At Darussalaam 13-01-2014

http://m.youtube.com/watch?v=QLKwsEpEdDU

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑

MILAD UN NABI CELEBRATION IN MADINA-E-MUNAWARA

http://m.youtube.com/watch?v=P1onkgV9lRw

๑۩۞۩๑ ๑۩۞۩๑


আহলুস সুন্নাহ অর্থাৎ উম্মতের সবচেয়ে বড় জামাতের ইজমা ও একত্র থাকা প্রসংগে হাদিস:-

The Prophet ( صلى الله عليه و آله وسلم )  has told us that


“this Ummah will never come together (as a consensus) upon misguidance, and the Support of Allah is with the gathering.”

:::::::::::::::::::::Referance:::::::::::::::::::::

~~Tabarani and Bazzar in Minah al-Madh (p. 192-193).

~~Ibn Kathir in al-Sira al-Nabawiyya (4:51)

~~Ali al-Qari in his Sharh al-Shifa` (1:364) say itis narrated by Abu Bakr al-Shafi`i and Tabarani,

~~Ibn Majah (#3940 Sahih – Suyuti’s Jami’ Saghir #2221),

~~Tirmidhi (K Fitan#2093),

~~Abu Dawud (#3711),

~~Nasa’i (Sunan Kubra,#3483),

~~Bayhaqi in Asma’ wa Sifat (p. 322 Sahih)

~~Shu’ab al-Iman (6:67 #7517),

~~Abu Nu’aym (Hilya, 3:37, 9:238),

~~Hakim (1:115-16, 4:556 Sahih), ‘

~~Abd ibn Humayd (Musnad, #1218),

~~Ahmad (Musnad, #25966),

~~Darimi (#54, Da’if),

~~Diya’ al-Maqdisi (7:129),

~~Quda’i (1:167 #239),

~~Daraqutni in his Sunan (4:245),

~~Ibn Abi Shayba (8:604, 672, 683),

~~Tabarani in his Mu’jam al-Kabir (1:153, 1:186, 3:209, 12:447, and 17:239-40,)

~~ Sahih – Haythami in his Majma’ 5:218-19)

~~ Mu’jam al-Awsat (5:122, 6:277, 7:193),

~~Ibn Abi ‘Asim in hisKitab as-Sunna (p. 39-41 #80-85, p. 44 #92), and others.


মিলাদুন্নবী (সা) সম্পর্কে আরো কিছু পোস্ট দেখুন:-

See in English with scan copies of several kitabs:-

1.http://ahlus-sunna.com/index.php?option=com_content&view=article&id=53&Itemid=118

2.http://salafiaqeedah.blogspot.com/2010/03/milad-un-nabi-part3.html

3.http://makashfa.wordpress.com/2014/01/10/research-study-of-mawlidun-nabi-from-quranhadithsalafsaliheen/

---------
4.http://www.rehmani.net/articles_english/eid-e-milad/index.php

5.http://www.alahazrat.net/islam/permissibility-of-celebrating-mawlid.php

6.http://www.ahlesunnat.net/media-library/downloads/regularupdates/meladpermissibility.htm

7.http://noorun.com/permissibility-of-celebrating-mawlid-from-quran-hadith/165




No comments:

Post a Comment

Featured Post

আকাইদে আহলে সুন্নাহ.apk (3.75 MB) [লেখক : মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বাহাদুর]

শুভ উদ্ভোদন !!!  আলহামদুলিল্লাহ! #COPY #SHARE করে ফেইসবুকে প্রচার করুন। Playstore এ আমাদের প্রথম App রিলিজ হলঃ App : আকাইদে আহলে সুন...

Popular Posts

All Posts